শিরোনাম
  • মেলায় যাই রে...গানটি বিটিভির ‘আনন্দ মেলা’ অনুষ্ঠানে প্রথম উপস্থাপন  ইসরাইলে হামলায় যেসব ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করেছে ইরান পঞ্চম গণবিজ্ঞপ্তিতে আবেদন শুরু বুধবার চলবে ৯ মে রাত ১২টা পর্যন্ত  আলপনার রঙে রাঙানো হচ্ছে হাওরের ১৪ কিলোমিটার সড়ক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বাংলা নববর্ষ উদযাপনের নির্দেশনায় যা আছে সপ্তম শ্রেণির ‌‌বিতর্কিত 'শরীফার গল্প' সংশোধন কতদূর? বাংলা বর্ষপঞ্জিতে যুক্ত হলো নতুন বর্ষ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ: পহেলা বৈশাখ আজ মুক্তিপণ দিয়েই জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক ও এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ মুক্ত পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতার দাবিতে পতাকা হাতে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের বিক্ষোভ ১০ দেশে অল্প খরচে পড়তে পারেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা
    • সংগঠন খবর
    • ব্যারিস্টার সুমনের উদ্যোগ- বন্যার্তদের জন্য একদিনে ৭০ লাখ সংগ্রহ করলেন

    ব্যারিস্টার সুমনের উদ্যোগ- বন্যার্তদের জন্য একদিনে ৭০ লাখ সংগ্রহ করলেন

    বন্যার্তদের সহযোগিতার জন্য একদিনের ব্যবধানে ৭০ লাখ টাকা সংগ্রহ করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। সিলেট-সুনামগঞ্জের বর্ন্যাতের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আহ্বানের পর দেশ-বিদেশ থেকে বিভিন্ন ব্যক্তি বিভিন্ন মাধ্যমে তার কাছে এই টাকা পাঠিয়েছেন।

    তিনি বলেন, আমার উপর বিশ্বাস করে এক দিনের ব্যবধানে ৭০ লক্ষ টাকা পাঠিয়ে আজীবন ঋণগ্রস্থ করেছেন আমাকে!

    সোমবার সকালে হবিগঞ্জ থেকে ফেসবুক লাইভে এসে ও ফোনে ঢাকা পোস্টকে সুমন এ তথ্য জানিয়েছেন। ( সেই ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন ) ।

    ব্যারিস্টার সুমনের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ছে তার কয়েকলাখ ভক্ত মানুষ। তার এই উদ্যোগে পাশে থাকারও আশ্বাস দিয়েছে অনেকে।

    ভিডিতে দেখা যায় সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, সিলেটে ও সুনামগঞ্জের ওপর দিয়ে ভয়াবহ বন্যা বয়ে যাচ্ছে। বন্যার্তদের সহায়তার জন্য আমি গত পরশু সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বলেছিলাম, ‘আপনারা যে যেভাবে পারেন, আমাকে সহযোগিতা করেন।’ দেশে-বিদেশে সবার কাছে এই আহ্বান জানিয়েছিলাম। আমি বলেছিলাম, ‘আপনাদের সহযোগিতা নিয়ে আমি বন্যার্তদের কাছে যেতে চাই ।‘আহ্বানে সাড়া দিয়ে গত একদিনের ব্যবধানে ৭০ লাখ টাকা পাচ্ছি। এর মধ্যে প্রায় ৫২ লাখ টাকা ইতোমধ্যে আমার কাছে এসে পৌঁছেছে। বাকি ১৮ লাখ টাকা আসার পথে।’

    সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, আমি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, আপনাদের এই টাকা আমার ফুটবল টিমের সদস্যদের নিয়ে সুষ্ঠুভাবে বন্যার্তদের মাঝে বণ্টন করব। ফুটবল টিমের সদস্যরাও বন্যার্তদের কষ্ট লাঘবে দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন। আপনাদের কষ্টের টাকায় কেনা সামগ্রী আমরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌঁছে দিয়ে আসব। আপনারা আমাকে বিশ্বাস করে মাত্র একদিনের ব্যবধানে ৭০ লাখ টাকা দিয়ে দিলেন, একটা মানুষের জীবনের এর চেয়ে আর বড় অর্জন হতে পারে না।’

    তিনি আরও বলেন, ‘দেশ-বিদেশ থেকে অসংখ্য মানুষ এই সহযোগিতা পাঠিয়েছেন। এখন আমার দায়িত্ব হলো আপনাদের প্রতিটি টাকা কীভাবে খরচ হলো, সেটার হিসাব রাখা। যারা বলেন, বাংলাদেশের মানুষ একে অন্যকে বিশ্বাস করে না, তাদের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বাস না করলে একদিনের ব্যবধানে ৭০ লাখ টাকা কীভাবে একজনের কাছে চলে আসে। আমি এই বিশ্বাসের মর্যাদা রাখব।’

    তিনি বলেন, ‘আমার কাছে মনে হচ্ছে, আজকের পর থেকে আমার দায়িত্ব অনেক বেশি বেড়ে গেছে। সবাই আমাকে এত বিশ্বাস করেছেন, এটা আমার জীবনের বড় পাওয়া। এজন্য সবার কাছে কৃতজ্ঞ।’