Home কারিগরি-মাদ্রাসা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা জাতীয়করণের দাবিতে টানা অবস্থান ধর্মঘট চলছে প্রেসক্লাবের সামনে

স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা জাতীয়করণের দাবিতে টানা অবস্থান ধর্মঘট চলছে প্রেসক্লাবের সামনে

165
0

রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্ত সব স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা সরকারিকরণ ঘোষণার দাবিতে টানা অবস্থান ধর্মঘট পালন করছেন মাদরাসা শিক্ষকরা। মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লবের সামনে দশম দিনের মতো এ কর্মসূচি পালন করছেন তারা।

অবস্থান কর্মসূচিতে নেতারা বলেন, আমাদের লাগাতার অবস্থান ধর্মঘট পালন চলছে। এর আগে আমরা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে অভিমুখে পদযাত্রাসহ শিক্ষামন্ত্রীর কাছে স্মারক লিপি জমা দিয়েছি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের অবস্থান ধর্মঘট চলবে বলে ঘোষণা দেন সংগঠনের সভাপতি কাজী ফয়জুর রহমান।

সাত দফা দাবির মধ্যে উল্লেখযোগ্য- প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো সব স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা মুজিববর্ষে মহাসমাবেশের মাধ্যমে সরকারিকরণের ঘোষণা, কোডবিহীন মাদরাসাগুলোর বোর্ড কর্তৃক কোড নম্বরে অন্তর্ভুক্তকরণ, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা নীতিমালা-২০১৮ সংশোধন করে আলিম শিক্ষক একজনের পরিবর্তে এইচএসসি পাস একজন অন্তর্ভুক্তকরণ, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো স্বতন্ত্র  ইবতেদায়ি মাদরাসা অফিস সহায়ক নিয়োগ, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকদের পিটিআই ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থাকরণ, মাদরাসায় আসবাবপত্র দেওয়াসহ ভবন নির্মাণ এবং স্থায়ী রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করতে হবে।

সমিতির মহাসচিব মোখলেছুর রহমান বলেন, ১৯৭৮ অর্ডিন্যান্স ১৭ (২০) ধারা মোতাবেক মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের শর্ত পূরণ সাপেক্ষে রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্ত হয়। রেজিস্ট্রেশন হওয়ার পর থেকেই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ধারা মোতাবেক সব কাজ পরিচালিত করে আসছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ন্যায় ইবতেদায়ি পঞ্চম শ্রেণি শিক্ষার্থী সমাপনী পরীক্ষায় অংশ ও  প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ন্যায়ে সরকারের সব কাজে অংশগ্রহণ করেন। এক হাজার ৫১৯টি ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষকদের মধ্যে সর্বসাকুল্যে প্রধান শিক্ষক আড়াই হাজার ও সহকারী শিক্ষক দুই হাজার ৩০০ টাকা ভাতা পান। বাকি রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত মাদরাসাগুলোর শিক্ষকরা ৩৪ বছর ধরে বেতন-ভাতা থেকে বঞ্চিত।

Print Friendly, PDF & Email
শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here