Home অন্যান্য খবর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির আগেই প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির আগেই প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার

100
0

দিনাজপুরের বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইন্সটিটিউটে (বিডব্লিউএমআরআই) চতুর্থ শ্রেণির ৫৫ জন সেবাকর্মীর নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ৩ ডিসেম্বর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হলেও এর তিনদিন আগে চাকরিপ্রার্থীদের সাক্ষাৎকার এবং আবেদনপত্র গ্রহণ শুরু হয়। এমন যাচ্ছেতাই নিয়োগ প্রক্রিয়াকে ‘প্রহসনের নিয়োগ’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে চাকরি প্রার্থী ও সরকারদলীয় নেতারা।

দিনাজপুরের বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইন্সটিটিউটে (বিডব্লিউএমআরআই) চতুর্থ শ্রেণির ৫৫ জন সেবাকর্মীর নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ৩ ডিসেম্বর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হলেও এর তিনদিন আগে চাকরিপ্রার্থীদের সাক্ষাৎকার এবং আবেদনপত্র গ্রহণ শুরু হয়। এমন যাচ্ছেতাই নিয়োগ প্রক্রিয়াকে ‘প্রহসনের নিয়োগ’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে চাকরি প্রার্থী ও সরকারদলীয় নেতারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২৯ নভেম্বর ইন্সটিটিউটের মহাপরিচালকের স্বাক্ষরিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ৩ ডিসেম্বর শুধু প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব ওয়েবসাইটে আপলোড করা হয়। এতে বলা হয়- ১ ডিসেম্বর থেকে ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত অফিস চলাকালে (সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত) আবেদনপত্র ও সাক্ষাৎকার গ্রহণ করা হবে। এতে আরও বলা হয়- আবেদনপত্র শুধু প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট ও নোটিশ বোর্ডে পাওয়া যাবে।

কিন্তু নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের আগেই ১ ডিসেম্বর থেকে আবেদনপত্র গ্রহণ ও সাক্ষাৎকার নেয়া শুরু হয়। রোববার শেষ দিনে ওয়েবসাইটটিও খোলা যায়নি। চাকরি প্রার্থীদের অভিযোগ, দিনাজপুর সদর উপজেলার নশিপুরে অবস্থিত প্রতিষ্ঠানটির প্রধান কার্যালয়ে সর্বসাধারণের প্রবেশে বিধি-নিষেধ রয়েছে। এ অবস্থায় নোটিশ বোর্ডে টানানো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সর্বসাধারণের চোখে পড়ার মতো নয়। কর্তৃপক্ষের এমন লুকোচুরি খেলা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন চাকরি প্রার্থী ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতারা।

দিনাজপুর সদর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নুরে আলম জানান, একজন চতুর্থ শ্রেণির চাকরি প্রার্থী কীভাবে ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি দেখবেন। তাও আবার ওয়েবসাইটটি জ্যাম করে রাখা হয়। অভিযোগ করে তিনি বলেন, এটি সম্পূর্ণ একটি ঘাপলা। ভেতরে ভেতরে নিয়োগ দিয়ে এখন সেটিকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ নিয়োগ প্রক্রিয়াকে প্রহসনের নিয়োগ হিসেবে আখ্যায়িত করে অবিলম্বে বাতিল এবং তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি জানান তিনি।

নিয়োগ কমিটির সভাপতি ড. আবু জামান জানান, আউটসোর্সিং পদ্ধতিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে এতকিছু মানা হয় না। এমন ক্ষেত্রে আমরা সরাসরি নিয়োগও দিতে পারি। ওয়েবসাইটে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কিছু জটিলতার কারণে সেটি ওয়েবসাইটে দিতে দেরি হয়েছে। রোববার শেষদিনে ওয়েবসাইট না খোলার বিষয়টি স্বীকার করে তিনি বলেন, তিনিও সেটি খুলতে পারেননি।

তিনি জানান, ৬০ থেকে ৭০ জন আবেদন করেছেন। স্বচ্ছতার ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া হবে। তবে নিয়োগের বিষয়টি ডিজি ভালো বলতে পারবেন বলে মন্তব্য করেন ড. আবু জামান। ইন্সটিটিউটের মহাপরিচালক (ডিজি) ড. মো. এছরাইল হোসেনের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দেয়া হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি। অবশ্য ক্ষুদেবার্তার জবাবে তিনি জানান, সচিবের সঙ্গে তিনি বৈঠক করছেন।

Print Friendly, PDF & Email
শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here