Home মাধ্যমিক দীর্ঘদিন বন্ধের সুযোগে স্কুল মাঠে গরুর হাট

দীর্ঘদিন বন্ধের সুযোগে স্কুল মাঠে গরুর হাট

21
0

শরীফুল আলম সুমন
করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে প্রায় দেড় বছর ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এই সুযোগে ঈদুল আজহা উপলক্ষে একাধিক স্কুল মাঠেই বসানো হয়েছে গরুর হাট। আগে এতসংখ্যক স্কুলের মাঠে গরুর হাট বসেনি বলে জানা গেছে।

জানা যায়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা পর্ষদ ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের সমঝোতায় এসব হাট বসছে। খোদ রাজধানীর কয়েকটি স্কুলেও বসানো হয়েছে এই হাট। অথচ স্কুল আঙিনায় শিক্ষা কার্যক্রম ব্যতীত অন্য কোনো ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে না বলে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের সুস্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে।

রাজধানীর ঐতিহ্যবাহী ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠেও গরুর হাট বসানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। কিছু গরু স্কুল মাঠে ঢোকানোর পর গত শুক্রবার রাতে অভিভাবকদের হস্তক্ষেপে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী মাঠ খালি করে।

স্কুলটির অভিভাবক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবদুল মজিদ সুজন বলেন, ‘আমরা শুক্রবার সন্ধ্যায় গিয়ে স্কুল মাঠে প্রায় ৩০০ গরু ও অর্ধশতাধিক ছাগল দেখতে পেয়েছি। ফখরুদ্দিন বিরিয়ানি এবং স্কুলের কিছু কর্মচারী এখানে গরুর হাট বসাতে চেয়েছিলেন। আমরা জেনেছি, এই গরুর হাট বসানোর পেছনে বড় অঙ্কের টাকা লেনদেন হয়েছে। অধ্যক্ষ নিজে স্কুল কম্পাউন্ডে থাকেন, তিনি কোনোভাবেই এর দায় এড়াতে পারেন না।’

ভিকারুননিসার অধ্যক্ষ অধ্যাপক কামরুন নাহার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ফখরুদ্দিন বিরিয়ানি স্কুলের একাংশ ভাড়া নিয়ে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তারাই তাদের ভাড়া নেওয়া অংশে গরু বিক্রির চেষ্টা করছিল, ব্যানারও টানিয়েছিল। জানার সঙ্গে সঙ্গেই রমনা থানাকে জানিয়েছি এবং জিডি করেছি। এ ছাড়া স্কুলের শিক্ষকরা কয়েকটা গরু কিনে দেখভালের জন্য কর্মচারীদের দিয়েছিলেন। সেগুলোও সরিয়ে ফেলা হয়েছে।’

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন যাত্রাবাড়ীর দনিয়া কলেজের পাশে খোলা জায়গায় গরুর হাটের ইজারা দিয়েছে, কিন্তু সেই গরুর হাট গিয়ে পৌঁছেছে ধলপুরে সিটি করপোরেশন আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে।

জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলায় ১৯৩৫ সালে স্থাপিত হয়েছে বকশীগঞ্জ এনএম উচ্চ বিদ্যালয়। বকশীগঞ্জ উপজেলায় ইজারা দেওয়া পাঁচটি হাট থাকলেও এই স্কুল মাঠে ম্যানেজিং কমিটির সঙ্গে যোগসাজশে বৃহস্পতিবার থেকে অবৈধভাবে বসানো হয়েছে গরুর হাট। এতে স্কুল কম্পাউন্ডে থাকা মুক্তিযুদ্ধকালীন গণকবর, মুক্তিযোদ্ধা মঞ্চ, মসজিদ, মুক্তমঞ্চ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

জানা যায়, বর্তমানে স্কুল বন্ধ থাকলেও চলছে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া-নেওয়া। এতে অনেক শিক্ষার্থী ও অভিভাবককে স্কুলে আসতে হচ্ছে, ক্লাসরুমে বসতে হচ্ছে। কিন্তু গরুর হাট বসানোয় সেই কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এ ছাড়া হাট শেষ হয়ে গেলেও বর্জ্য কেউ পরিষ্কার করে না, খানাখন্দে ভরে যায় স্কুল মাঠ। এতে ঈদের পরও কয়েক মাস প্রচণ্ড দুর্ভোগ পোহাতে হবে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (মাধ্যমিক) অধ্যাপক মো. বেলাল হোসাইন বলেন, ‘কোনো অবস্থায়ই স্কুল প্রাঙ্গণে শিক্ষা কার্যক্রমের বাইরে অন্য কিছু করা যাবে না। আর গরুর হাট বসানোর তো প্রশ্নই আসে না। আমরা এ ব্যাপারে খোঁজ নেব। এ ছাড়া যদি কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়, তাহলে দ্রুততার সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

বান্দরবান পৌর এলাকার বালাঘাটা বিলকিছ বেগম উচ্চ বিদ্যালয়, সিলেটের বিয়ানীবাজারে পিএইচজি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, কু?ড়িগ্রা?মের উ?লিপু?রে দুর্গাপুর উচ্চ বিদ্যালয়, কুমিল্লার চান্দিনায় নবাবপুর উচ্চ বিদ্যালয়, ধেরেরা উচ্চ বিদ্যালয়, শ্রীমন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠ, নরসিংদীর মনোহরদীতে ছাদত আলী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় এবং হাতিরদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে গরুর হাট বসেছে।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ১৪টি হাটের মধ্যে ছয়টিই বসেছে বিভিন্ন স্কুলের মাঠে। সুনামগঞ্জ সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে গরুর হাট বসানো হয়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. ফয়জুর রহমান বলেন, ‘স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মহোদয় পৌর কর্তৃপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে স্কুল মাঠে হাট বসানোর অনুমোদন দিয়েছেন।’ তবে জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, হাটের ইজারা দেয় পৌরসভা। পৌর কর্তৃপক্ষই স্কুল কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে হাটটি বসিয়েছে।

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার আছিম শাহাবুদ্দীন ডিগ্রি কলেজ, পুটিজানা শিবগঞ্জ আল আমিন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে কোরবানির পশুর বিশাল হাট বসেছে। শাহাবুদ্দীন ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মো. মকবুল হোসাইন বলেন, ‘স্থানীয় লোকজন কলেজের জমি দিয়েছেন, তাঁরা হাট বসাবে, আমি না করতে পারি?’ তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল ছিদ্দিক বলেন, ‘অধ্যক্ষকে নিষেধ করেছি কলেজ মাঠে যেন কোরবানির পশুর হাট না বসে।’

Print Friendly, PDF & Email
শেয়ার করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here