জাতীয় পার্টির সদস্যরা নতুন শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে কঠোর সমালোচনা করেন

ডিম ভাজি আলু ভর্তার কথা প্রায়ই বলা হচ্ছে - এটি একেবারেই অপপ্রচার

শিক্ষার্থীদের বাড়ি থেকে ডিম ভাজি ও আলু ভাজি করে আনার অভিযোগের ব্যাখ্যা দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, ডিম ভাজি আলু ভর্তার কথা প্রায়ই বলা হচ্ছে। এটি একেবারেই অপপ্রচার।

এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, ষষ্ঠ শ্রেণিতে ১২১টি অধ্যায় আছে। এর মধ্যে জীবন-জীবিকার একটি অধ্যায় হলো রান্না।

সেই রান্নাটি কেন? আমাদের শিক্ষার্থী দেখে বাড়িতে মা কিংবা অন্য কোনো একজন রান্না করে। সেই বিষয়টি যে জরুরি সে তা শেখে না। একজন মানুষ যখন রান্না করবে সে রান্নার বিষয়টি চিন্তা করবে। ১২১টি অধ্যায়ের মাত্র একটি এবং সারা বছরে একদিন মাত্র বিদ্যালয়ে পিকনিক করে রান্নাটা দেখবে। এটা বাড়িতে নয়, যেটা বাড়িতে দেওয়া হচ্ছে সেটা শিক্ষকের না বোঝার ফল। সে জন্য শিক্ষকদের বারবার প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

রবিবার (২৯ অক্টোবর ২০২৩) আলোচনায় অংশ নিয়ে দীপু মনি এ কথা বলেন।  জাতীয় সংসদে ঠাকুরগাঁও বিশ্ববিদ্যালয় বিলটির সংশোধনী প্রস্তাবের ওপর আলোচনা করেন তিনি। এর আগে বিলের সংশোধনী প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সদস্যরা নতুন শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে কঠোর সমালোচনা করেন।

তিনি বলেন, ‘আর্টপেপার কিনতে হবে… ব্যয়বহুল– এটাও না বোঝার ফল। মোটেই আর্টপেপার কেনার কথা নয়। বাড়ির পুরোনো খবরের কাগজ, ক্যালেন্ডার ইত্যাদি ব্যবহারের কথা বলা হয়েছে। এটাও কিছু শিক্ষক ইচ্ছাকৃত করাচ্ছেন। আর মোরগ পালন মোটেই করতে হবে না। এখানেও একটি বিভ্রান্তি তৈরি করা হয়েছে।’

দীপু মনি বলেন, ‘আমাদের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বিশ্বমানের যে শিক্ষাব্যবস্থার কথা বলা হয়, সেখানে তফাতটা কোথায়– এটা নিয়ে বারবার আলাপ হয়েছে। সফট স্কিলের জায়গায় আমরা বারবার পিছিয়ে পড়ছি। আমরা কমিউনিকেট করতে পারছি না। আমাদের সূক্ষ্ম চিন্তার দক্ষতা, সমস্যা নিরূপণ ও সমাধানের দক্ষতা, যৌথ প্রচেষ্টার দক্ষতা, দলগতভাবে কাজ করার দক্ষতা– এখন এই কাজটি একেবারে শৈশব-কৈশোর থেকে রপ্ত করবে। সেটা না করলে একেবারে বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে সেগুলোকে ক্যাপসুল আকারে গিলিয়ে খাওয়াতে দিলে সম্ভব হয় না। এর জন্য নতুন শিক্ষাক্রমে এই বিষয়গুলো শেখানো হচ্ছে।’