• প্রাথমিক
  • প্রতিমন্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়

প্রতিমন্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়

কয়েকটি গণমাধ্যমের অনলাইন ভার্সনে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন সম্পর্কে একটি  প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার মাহবুবুর রহমান তুহিন-এর পাঠানো প্রতিবাদ লিপিতে বলা হয়,  ৭ ডিসেম্বর কয়েকটি গণমাধ্যমের অনলাইন ভার্সনে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব মো. জাকির হোসেন সম্পর্কে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে; যা অনাকাঙ্ক্ষিত, অনভিপ্রেত ও সত্যের অপালাপমাত্র। গণমাধ্যম সমাজের দর্পণ।  সত্যকে মানুষের সামনে তুলে ধরে এ মাধ্যম। কিন্তু এ ধরণের উদ্ভট,অলীক ও কল্পনাপ্রসূত সংবাদ সংবাদ কীভাবে প্রকাশ পায় সেটা বোধগম্য হচ্ছে না। প্রতিবেদকের উচিত ছিলো এ ধরণের একটি বিদ্বেষমূলক সংবাদ প্রকাশের আগে প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের সাথে কথা বলার।  সেটা না করে তিনি একপেশে সংবাদ পরিবেশেন করে সাংবাদিকতার নীতি পরিপন্থী কাজ করেছে; যা কাম্য নয়।

প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে ৮ ডিসেম্বর ২০২৩ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগের ১ম পর্বের পরীক্ষা হওয়ায়, ভিড় ও তদ্বির এড়াতে প্রতিমন্ত্রীর মিন্টো রোডস্থ বাসায় অপরিচিত কাউকে প্রবেশের ক্ষেত্রে নিষেধ করা হয়। ৭ ডিসেম্বর কতিপয় ব্যক্তি প্রতিমন্ত্রীর মিন্টোরোডস্থ সরকারি বাসভবনে প্রবেশ করতে চাইলে হাউসগার্ড বাধা দেয়। কিন্তু তারা বাধা অগ্রাহ্য করে বাসার ভেতর  প্রবেশ করে। এবং গার্ডদের সাথে চিৎকার, চেঁচামেচি ও ধস্তাধস্তি  করতে থাকে। শোরোগোল শুনে বাসার লোকজন  জানতে আসলে তাদের সাথেও আগন্তুকরা দুর্ব্যবহার শুরু  করে। একপর্যায়ে  পালিয়ে যাবার সময় একজন পুলিশের হাতে ধরা পড়ে।  এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী দ্ব্যার্থহীনভাবে জানান, তাঁর সময়ে অত্যন্ত স্বচ্ছতার সাথে প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষকসহ নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পরীক্ষার উত্তরপত্র মূল্যায়নসহ ফলাফল প্রকাশ করেছে  বাংলাদেশ  প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ (বুয়েট) এখানে অন্যকোন কিছু করার প্রশ্নই আসে না। ২০২২সালে ৩৭ হাজার ৫ শত ৭৪ জন সহকারী শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছে; যা স্বাধীনতার পর সর্বোচ্চ। কেউ এ নিয়োগ নিয়ে কোন ধরণের প্রশ্ন উত্থাপন করতে পারেনি। 

আসন্ন নিয়োগ পরীক্ষাও স্বচ্ছতার ভিত্তিতে হবে বলে প্রতিমন্ত্রী সবাইকে আশ্বস্ত করতে চায়। প্রতিমন্ত্রী আশা করে  প্রকৃত তথ্য জানার পর এ ব্যাপারে ভুল বোঝাবোঝির অবসান হবে।  গণমাধ্যম সঠিক সংবাদ পরিবেশেন করবে।