• কারিগরি
  • ডিজিটাল দক্ষতা উন্নয়নে ৮০ হাজার শিক্ষার্থীকে প্রশিক্ষণ দেবে সরকার

ডিজিটাল দক্ষতা উন্নয়নে ৮০ হাজার শিক্ষার্থীকে প্রশিক্ষণ দেবে সরকার

ডিজিটাল দক্ষতা উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন সরকার। চাকরির বাজারের চাহিদা পূরণের জন্যই দেওয়া হবে এ প্রশিক্ষণ। ৮০ হাজার কলেজ ও স্নাতক শিক্ষার্থী পাবেন এ প্রশিক্ষণ। আগামী দুই বছরে ‘ডিজিটাল স্কিলস ট্রেনিং ফর স্টুডেন্টস’ কর্মসূচির আওতায় চলবে এ প্রশিক্ষণ। ৮০ হাজার শিক্ষার্থী ও স্নাতকেরা তিনটি স্তরে প্রশিক্ষণ পাবেন। ফাউন্ডেশনাল, ইন্টারমিডিয়েট ও অগ্রগামী স্তরে শিক্ষার্থী ও গ্র্যাজুয়েটরা প্রশিক্ষণ পাবেন।

গত বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) রাজধানী মিরপুরের ইয়ুথ টাওয়ারে এনহ্যান্সিং ডিজিটাল গভর্নমেন্ট অ্যান্ড ইকোনমি (ইডিজিই) প্রকল্পের সম্মেলনকক্ষে ইডিজিই প্রকল্প ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়সহ ২৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে পৃথক পৃথক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

বাসসের খবরে বলা হয়েছে, ইডিজিই প্রকল্প পরিচালক মো. সাখাওয়াৎ হোসেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান ও অধ্যাপকেরা নিজ নিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের অধীন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের ইডিজিই প্রকল্প বাস্তবায়নে অর্থায়ন করছে সরকার ও বিশ্বব্যাংক। পর্যায়ক্রমে আরও বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়কে এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে যুক্ত করা হবে।

সমঝোতা স্মারক অনুসারে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আগামী দুই বছরে ৮০ হাজার শিক্ষার্থী ও গ্র্যাজুয়েটদের প্রশিক্ষণ দেবে। তিনটি স্তরে চলবে প্রশিক্ষণ। 

প্রথমটি হচ্ছে ফাউন্ডেশনাল বা ভিত্তিমূলক স্তর। এ স্তরে ৫০ হাজার প্রশিক্ষণার্থী ডিজিটাল প্রযুক্তি সম্পর্কে মৌলিক ধারণা ও হাতেকলমে প্রশিক্ষণ পাবেন। 
এরপর ইন্টারমিডিয়েট বা মধ্যম স্তরে ফাউন্ডেশনাল স্তরের চেয়ে অপেক্ষাকৃত জটিল ডিজিটাল বিষয়ে ২০ হাজার শিক্ষার্থী ও গ্র্যাজুয়েট প্রশিক্ষণ পাবেন। 
তৃতীয় স্তরটি হচ্ছে উন্নত ও অগ্রগামী। ১০ হাজার শিক্ষার্থী ও গ্র্যাজুয়েট কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, রোবটিক্স, সাইবার সিকিউরিটি ইত্যাদি বিষয়ে বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ পাবে এ স্তরে।

সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হওয়ার পর প্রশিক্ষণের ব্যাপারে শিক্ষকদের অবহিতকরণের লক্ষ্যে এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব মো. সামসুল আরেফিন, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের পরিচালক মো. আবু সাইয়িদ, ইউজিই প্রকল্পের পলিসি অ্যাডভাইজার আবদুল বারী ও স্মার্ট লিডারশিপ একাডেমির টিম লিডার মো. মাহফুজুল ইসলাম শামীম, বুয়েটের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান মাহমুদা নাজনীন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক রবিউল ইসলাম ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সানাউল্লাহ চৌধুরী।


আইসিটি সচিব বলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির যেভাবে প্রসার ঘটছে এবং যেভাবে মানুষের যুক্ততা ছাড়াই গবেষণা কার্যক্রম চালাচ্ছে, তাতে এসব প্রযুক্তিনির্ভর প্রশিক্ষণে দক্ষ মানুষ তৈরি ও গবেষণা করতে না পারলে আমরা সব সময়ই প্রযুক্তির ও উদ্ভাবনের ভোক্তা হয়েই থাকব। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গবেষণা ও উদ্ভাবনে সরকারের সদিচ্ছার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, সরকার ইডিজিই প্রকল্পের মাধ্যমে ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০টি বিসার্চ অ্যান্ড ইনোভেশন সেন্টার (আরআইসি) প্রতিষ্ঠা করছে, যা উদ্ভাবন ও গবেষণার বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।