শিরোনাম
  • মেলায় যাই রে...গানটি বিটিভির ‘আনন্দ মেলা’ অনুষ্ঠানে প্রথম উপস্থাপন  ইসরাইলে হামলায় যেসব ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করেছে ইরান পঞ্চম গণবিজ্ঞপ্তিতে আবেদন শুরু বুধবার চলবে ৯ মে রাত ১২টা পর্যন্ত  আলপনার রঙে রাঙানো হচ্ছে হাওরের ১৪ কিলোমিটার সড়ক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বাংলা নববর্ষ উদযাপনের নির্দেশনায় যা আছে সপ্তম শ্রেণির ‌‌বিতর্কিত 'শরীফার গল্প' সংশোধন কতদূর? বাংলা বর্ষপঞ্জিতে যুক্ত হলো নতুন বর্ষ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ: পহেলা বৈশাখ আজ মুক্তিপণ দিয়েই জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক ও এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ মুক্ত পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতার দাবিতে পতাকা হাতে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের বিক্ষোভ ১০ দেশে অল্প খরচে পড়তে পারেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা
  • অধ্যক্ষের দায়িত্ব পাবেন জ্যেষ্ঠ প্রভাষক 


    উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ বা প্রধান শিক্ষক পদ খালি থাকলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হবেন জ্যেষ্ঠ প্রভাষক বা জ্যেষ্ঠ সহকারী অধ্যাপক। ওই পদের দায়িত্ব সহকারী প্রধান শিক্ষককে দেয়া যাবে না।  উচ্চ মাধ্যমিক কলেজেও এ নিয়মে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিয়োগ হবে। 

    ডিগ্রি কলেজের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠান প্রধানের ভার দিতে হবে উপাধ্যক্ষকে। তবে দুটি পদ একই সঙ্গে শূন্য থাকলে জ্যেষ্ঠ সহকারী অধ্যাপক অধ্যক্ষ পদের দায়িত্ব পাবেন। 

    অপরদিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদ খালি থাকলে সহকারী প্রধান শিক্ষক বা জ্যেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক প্রতিষ্ঠান প্রধানের ভার পাবেন। নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধানের পদ শূন্য থাকলে দায়িত্ব পাবেন জ্যেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক।

    শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ থেকে প্রকাশ করা নতুন পরিপত্রে এসব বিষয় স্পষ্ট করা হয়েছে। ওই বিভাগের সচিব সোলেমান খানের ৫ ফেব্রুয়ারির স্বাক্ষরে পরিপত্রটি জারি করা হয়। 

    পরিপত্রে বলা হয়েছে, প্রতিষ্ঠানটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় অথবা স্নাতক (পাস) কলেজ (ডিগ্রি কলেজ) হলে, সহকারী প্রধান শিক্ষক বা উপাধ্যক্ষ ছাড়া অন্য কোনো শিক্ষককে প্রধান শিক্ষক বা অধ্যক্ষের দায়িত্ব দেয়া যাবে না। তবে সহকারী প্রধান শিক্ষক বা উপাধ্যক্ষের পদ শূন্য থাকলে কর্মরত শিক্ষকদের মধ্য থেকে জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক বা জ্যেষ্ঠতম সহকারী অধ্যাপককে প্রধান শিক্ষক বা অধ্যক্ষের দায়িত্ব দিতে হবে।

    প্রতিষ্ঠানটি উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয় হলে, সহকারী প্রধান শিক্ষককে (গ্রেড-৮) প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ বা প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বভার অর্পন করা যাবে না। প্রতিষ্ঠানে কর্মরত জ্যেষ্ঠ প্রভাষক বা সহকারী অধ্যাপকদের (গ্রেড-৬) মধ্য থেকে জ্যেষ্ঠতম জ্যেষ্ঠ প্রভাষক বা জ্যেষ্ঠতম সহকারী অধ্যাপককে অধ্যক্ষের দায়িত্ব দিতে হবে।

    নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় অথবা উচ্চমাধ্যমিক কলেজের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানে কর্মরত সহকারী শিক্ষক বা জ্যেষ্ঠ প্রভাষক ও সহকারী অধ্যাপকদের মধ্য থেকে জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক অথবা জ্যেষ্ঠতম জ্যেষ্ঠ প্রভাষক বা জ্যেষ্ঠতম সহকারী অধ্যাপককে দায়িত্ব দিতে হবে।

    পরিপত্র মন্ত্রণালয় আরো বলছে, জ্যেষ্ঠতম সহকারী শিক্ষক বা জ্যেষ্ঠতম প্রভাষক বা জ্যেষ্ঠতম সহকারী অধ্যাপক নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রথম এমপিওভুক্তির তারিখ, একই তারিখে এমপিওভুক্ত হলে যোগদানের তারিখ এবং যোগদানের তারিখ একই হলে বয়সের দিক থেকে বয়োজ্যেষ্ঠ শিক্ষককে জ্যেষ্ঠতম গণ্য করতে হবে। একইভাবে একই বয়সের দুই জন হলে উচ্চতর শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পন্ন শিক্ষককে জ্যেষ্ঠতম গণ্য করতে হবে।

    এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে বলেও বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।