শিরোনাম
  • মেলায় যাই রে...গানটি বিটিভির ‘আনন্দ মেলা’ অনুষ্ঠানে প্রথম উপস্থাপন  ইসরাইলে হামলায় যেসব ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করেছে ইরান পঞ্চম গণবিজ্ঞপ্তিতে আবেদন শুরু বুধবার চলবে ৯ মে রাত ১২টা পর্যন্ত  আলপনার রঙে রাঙানো হচ্ছে হাওরের ১৪ কিলোমিটার সড়ক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বাংলা নববর্ষ উদযাপনের নির্দেশনায় যা আছে সপ্তম শ্রেণির ‌‌বিতর্কিত 'শরীফার গল্প' সংশোধন কতদূর? বাংলা বর্ষপঞ্জিতে যুক্ত হলো নতুন বর্ষ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ: পহেলা বৈশাখ আজ মুক্তিপণ দিয়েই জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক ও এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ মুক্ত পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতার দাবিতে পতাকা হাতে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের বিক্ষোভ ১০ দেশে অল্প খরচে পড়তে পারেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা
    • বিবিধ
    • ভাষার মাসে ত্রয়োদশ আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াড

    ভাষার মাসে ত্রয়োদশ আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াড

    উত্তরায় ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল প্রাঙ্গণে ইংরেজিমাধ্যম ও ইংরেজি ভার্শন স্কুলের বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে মহা আড়ম্বরে অনুষ্ঠিত হয়েছে আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াড। সারা দেশের ৮৫ টি স্কুলের ১২০টি শাখার ১৬৩০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। 

    গতকাল সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত উত্তরায় ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল প্রাঙ্গণে ত্রয়োদশ আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত হয়। দিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানমালায় প্রতিযোগীরা এবার রচনা লেখা, আবৃত্তি, নাচ, গান, অঙ্কন, কুইজ এবং উপস্থিত বক্তৃতা বিষয়ে বয়সভেদে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছে।

    জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতেই কবিতা আবৃত্তি করেন এবং বক্তব্য দেন একুশে পদকজয়ী আবৃত্তিশিল্পী শিমুল মুস্তাফা। স্বাগত বক্তব্য দেন ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশের সম্মানিত প্রিন্সিপাল রোকসানা জারিন।

    ভাষার মাসে দেশের ইংরেজি মাধ্যম এবং ইংরেজি ভার্শন স্কুলগুলোর অংশগ্রহণে বাংলা ভাষা বিষয়ক সর্ববৃহৎ প্রতিযোগিতা রাজধানীর উত্তরায় অবস্থিত ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ আয়োজিত আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াড।বার্ষিক এই প্রতিযোগিতার ধারাবাহিকতা এরই মধ্যে সাফল্যের সাথে এক যুগ অতিক্রম করেছে।  

    এ বছরও অন্যান্য বারের মতো প্রতিযোগিতার উপদেষ্টা ও বিচারক হিসেবে রয়েছেন দেশের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ- লেখক-শিল্পীবৃন্দ। এবার বাংলা অলিম্পিয়াডের উপদেষ্টা হিসেবে আছেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর, এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. হাকিম আরিফ। রচনা, আবৃত্তি, সঙ্গীত, চিত্রাঙ্কন, তাৎক্ষণিক বক্তৃতা, নৃত্য এবং বাংলা কুইজ-এই ৭ টি বিভাগে কয়েকটি ক্যাটাগরিতে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

    প্রতিযোগিতার বিচারক হিসেবে ছিলেন দেশসেরা কবি-সাহিত্যিক-শিল্পী-শিক্ষাবিদবৃন্দ। এ বছর একুশে পদকপ্রাপ্ত আবৃত্তিশিল্পী শিমুল মুস্তাফা, রূপা চক্রবর্তী, বিশিষ্ট অভিনেতা এবং আবৃত্তিশিল্পী জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, ডালিয়া আহমেদ, মাহিদুল ইসলাম, মাসকুর-এ-সাত্তার কল্লোল, একুশে পদকজয়ী বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী শিবলী মোহাম্মদ, শামীম আরা নীপা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃত্যকলা বিভাগের চেয়ারপারসন মনিরা পারভীন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিক্ষক ড. সৈয়দ রেজাউল করীম, নারায়ণগঞ্জ আর্ট কলেজের অধ্যক্ষ শামসুল আলম আজাদ এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের শিল্পী তন্ময় শেখ, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের পরিচালক মোঃ নেয়ামত উল্লাহ এবং নায়েমের সাবেক পরিচালক ড. মোঃ আতিকুল ইসলাম পাঠান, বিশিষ্ট শিল্পী এবং সঙ্গীতশিক্ষক পদ্মিনী ইমন, প্রীতি ঘোষ, দেবাশিস দেব প্রমুখ বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।