শিরোনাম
  • মেলায় যাই রে...গানটি বিটিভির ‘আনন্দ মেলা’ অনুষ্ঠানে প্রথম উপস্থাপন  ইসরাইলে হামলায় যেসব ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করেছে ইরান পঞ্চম গণবিজ্ঞপ্তিতে আবেদন শুরু বুধবার চলবে ৯ মে রাত ১২টা পর্যন্ত  আলপনার রঙে রাঙানো হচ্ছে হাওরের ১৪ কিলোমিটার সড়ক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বাংলা নববর্ষ উদযাপনের নির্দেশনায় যা আছে সপ্তম শ্রেণির ‌‌বিতর্কিত 'শরীফার গল্প' সংশোধন কতদূর? বাংলা বর্ষপঞ্জিতে যুক্ত হলো নতুন বর্ষ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ: পহেলা বৈশাখ আজ মুক্তিপণ দিয়েই জিম্মি থাকা ২৩ নাবিক ও এমভি আবদুল্লাহ জাহাজ মুক্ত পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতার দাবিতে পতাকা হাতে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের বিক্ষোভ ১০ দেশে অল্প খরচে পড়তে পারেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা
    • মাধ্যমিক
    • একাডেমিক সুপারভাইজারকে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের দায়িত্ব প্রদান!

    একাডেমিক সুপারভাইজারকে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের দায়িত্ব প্রদান!

    একাডেমিক সুপারভাইজারকে বিধিবহির্ভুতভাবে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনা করার দায়িত্ব প্রদানের অভিযোগ উঠেছে ফেনী জেলা শিক্ষা অফিসারের বিরুদ্ধে।

    এই ঘটনায় বাংলাদেশ সরকারি মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির আহবায়ক সাখায়েত হোসেন বিশ্বাস এবং সদস্য সচিব মো. আবদুস সালাম স্বাক্ষরিত একটি প্রতিবাদলিপি মাউশিতে জমা দেয়া হয়েছে।

    গত ৬ মার্চ জমা দেয়া প্রতিবাদলিপিতে বাশমাশিস নেতৃবৃন্দ উল্লেখ করেন, 'সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি অফিস আদেশে দেখা যায়, ফেনীর জেলা শিক্ষা অফিসার , সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের শূন্য পদে  উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার কামরুন নাহারকে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনা করার দায়িত্ব প্রদান করেন। এই ধরণের আদেশ প্রদান করা তাঁর ক্ষমতার মধ্যে নেই বলে মনে করেন বাশমাশিস নেতৃবৃন্দ। তারা মনে করেন ফেনীর জেলা শিক্ষা অফিসারের এই আদেশ সম্পূর্ণরূপে ক্ষমতাবহির্ভূত।'

    অভিযোগপত্রে আরো উল্লেখ করা হয়, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (কর্মচারি) নিয়োগ বিধিমালা, ২০২১ এর তফসীল ১ এর অনুচ্ছেদ ১৩ অনুযায়ী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার পদের শতকরা ৫০ ভাগ সহকারী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার পদ থেকে পদোন্নতির মাধ্যমে এবং শতকরা ৫০ ভাগ পদ সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষকগণের মধ্য হতে পদায়নের মাধ্যমে নিয়োগ বিধি রয়েছে। ফেনীর জেলা শিক্ষা অফিসার এই আদেশ সম্পূর্ণরূপে বিধিবহির্ভূত।

    এছাড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের পদটি রাজস্ব খাতের স্থায়ী পদ। এই পদে মেয়াদ উত্তীর্ণ কোন প্রকল্পের কর্মকর্তাকে পদায়নের কোনো সুযোগ নেই বলেও অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়।

    অভিযোগের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারি মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সদস্য সচিব মো. আবদুস সালাম এডুকেশন বাংলাকে বলেন, আমরা এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ মাউশিতে দিয়েছি। শীঘ্রই মাউশির পরিচালকের (মাধ্যমিক) সাথে বসে এ বিষয়ে কথা বলবো। একাডেমিক সুপারভাইজার একজন প্রকল্পভুক্ত কর্মকর্তা এবং অস্থায়ী ভিত্তিতে তার নিয়োগ। তাকে কোনভাবেই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনার দায়িত্ব দিতে পারেন না।

    এদিকে ফেনী জেলা শিক্ষা অফিসার স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে দেখা যায় গত ২৭ ফেব্রুয়ারি জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সদর উপজেলার একাডেমিক সুপারভাইজার কামরুন নাহারকে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের প্রশাসনিক (আর্থিক ব্যাতিত) কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দায়িত্ব প্রদান করে আদেশ জারি করেন।

    আদেশে বলা হয় 'ফেনী সদর উপজেলায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের পদ শূন্য থাকাকালীন জনাব কামরুন নাহার, উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার, ফেনী সদরকে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের প্রশাসনিক (আর্থিক ব্যাতিত) কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দায়িত্ব প্রদান করা হলো। তিনি নিম্নস্বাক্ষরকারীর প্রতিনিধি হয়ে সকল প্রকার কার্যক্রমে অংশগ্রহণ ও পরিচালনা করবেন।'

    এই সম্পর্কে ফেনী জেলা শিক্ষা অফিসার মো. শফী উল্লাহ-এডুকেশন বাংলাকে বলেন, একাডেমিক সুপারভাইজারকে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার পদে নিয়োগ দেয়ার ক্ষমতা আমার নেই। সেখানে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের পদ শূন্য থাকায় আমি কেবল তাকে শিক্ষকদের মিটিং-এ যোগদান করার অনুমতি দিয়েছি।